CFLও LED কী ?

বিগত কিছু বছর জুড়েই পুরো বিশ্বই বিদ্যুত সাশ্রয়ী বাতির দিকে ঝুঁকছে। চিরাচরিত বিদ্যুৎগ্রাসী ফিলামেন্ট বাল্বকে পেছনে ফেলে সিএফএল বিদ্যুৎ ও টাকা দুই ই সশ্রয়ে অবদান রেখে এসেছে। অবশ্য বিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে সিএফএল-এরও বিকল্প নিয়ে এসেছেন। এল.ই.ডি বা LED (LIGHT EMMITING DIODE)
ব্যাপারটার সাথে আমরা আগে থেকেই হয়তো পরিচিত, আজকাল বেশ অহরহই চোখে পড়ে। আসুন, একটু খানি জেনে নেই।
CFL বাল্ব মূলত অভ্যন্তরে ফসফরাসের কোটিং যুক্ত একটি গ্যাস ভর্তি টিউব। বিদ্যুৎ প্রবাহিত হলে এই গ্যাস থেকে অতিবেগুনি রশ্মি নির্গত হয়। আর অতিবেগুনি রশ্মি ফসফরাসকে উত্তেজিত করে আলো তৈরি করে। অপর পক্ষে LED বাল্বে মূলত গ্যালিয়াম নাইট্রাইটের তৈরি একটি পজিটিভ ও একটি নেগেটিভ সেমিকন্ডাক্টার যুক্ত মাইক্রোচিপ থাকে। যা অল্প বিদ্যুতে শক্তিশালী অধিকতর সাদা রঙের আলো তৈরিতে সক্ষম। এটি সিএফএল বাতির চেয়ে ২.৩ গুন বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী।যেহেতু বিদ্যুৎ কম খরচ হবে সেহেতু বিদ্যুৎ বিলও কম আসবে। জাতীয় গ্রিড থেকেও কম বিদ্যুৎ খরচ হবে। নতুন বিদ্যুৎ উৎপাদনেও কম গ্যাস কয়লা পোড়াতে হবে, ফলে বলাই বাহুল্য যে দূষণও হবে কম। অপর পক্ষে সি এফ এল বাল্বে কিছু পরিমান মার্কারি থাকে যা যেখানে সেখানে ফেললে পরিবেশ এর মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এখানেই বোঝা যাচ্ছে যে LED বাতি কতটা সাশ্রয়ী।
সময়ের সাথে দিন দিন জ্বালানির দাম বাড়ছে, বাড়ছে বিদ্যুৎ উৎপাদনের খরচ। উৎপাদন খরচ এর সাথে তাল রেখে বাড়ছে বিদ্যুৎ মূল্যটাও। তাই আমাদেরও হাঁটতে হবে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী প্রযুক্তির পথে। বেছে নিতে হবে পরিবেশবান্ধব ও দূষণমুক্ত শক্তির উৎসের পথ।

Comments